খুলে যাচ্ছে পর্যটন খাতের অপার সম্ভাবনার দুয়ার

0 110

 

বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই এ খাতের চিত্র পাল্টাতে থাকে। সরকারের দক্ষ ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশের পর্যটন খাত রাজস্ব আয় বাড়াতে অবদান রাখছে। পর্যটন খাতের জৌলুশ বাড়ানোর জন্যে সরকার ২০১৬-২০১৮ সালকে পর্যটন বর্ষ হিসেবে ঘোষণা করে নানা উদ্যোগ এবং পরিকল্পনা গ্রহণ করে। ২০০৯ সাল থেকে গত নয় বছরে ৬ হাজার ৬৯৯ দশমিক ১৬ কোটি টাকা পর্যটন শিল্পের মাধ্যমে আয় হয়েছে। বর্তমানে দেশের পর্যটন খাত জিডিপিতে ২ দশমিক ১ শতাংশ অবদান রাখছে। ২০২৫ সালের মধ্যে পর্যটন শিল্পের সর্বোচ্চ বিকাশে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে সরকার। পুরো দেশকে ৮টি পর্যটন জোনে ভাগ করে প্রতিটি স্তরে এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করার কথা বলা হয়েছে।

 

পর্যটনের স্থান হিসেবে এদেশে আছে ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন, সিলেট ও তিন পার্বত্য জেলা, পৃথিবীর বৃহত্তম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার এবং বিভিন্ন জেলায় বেশকিছু ঐতিহাসিক ও প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন। সেন্টমার্টিন, রামু, চকরিয়ায় প্রাচীন স্থাপনাগুলো দেখতে আসেন দেশি-বিদেশি পর্যটকরা।

 

পাহাড়ি জেলা বান্দরবানের নীলাচল পর্যটন কেন্দ্র সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এক হাজার ৬০০ ফুট উঁচুতে। এছাড়াও নীলগিরি, ডিম পাহাড়, থানছি-আলীকদম সড়ক, বগা লেক, কেওক্রাডংয়ের চূড়া, নাফাকুম, সাঙ্গু নদী, স্বর্ণজাদি ও বেশকিছু ঝর্ণা আছে সেখানে।

 

রাঙ্গামাটির কাপ্তাই লেক, ঝুলন্ত সেতু, রাজবাড়ি, শুভলং, সাজেকসহ বেশকিছু স্থান পর্যটকদের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। খাগড়াছড়িতে আলুটিলার গুহা, টেরেং, রিচাং ঝর্ণাসহ অনেক দর্শনীয় স্থানও পর্যটকদের আকৃষ্ট করছে।

 

পর্যটন নগর চট্টগ্রামে আছে ফয়’স লেক, বাটালী পাহাড়, পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত, আনোয়ারার পারকি সমুদ্র সৈকত, ইতিহাসের নীরব সাক্ষী ওয়ার সিমেট্রি, আদালত ভবন, চেরাগী পাহাড়, চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন, সিআরবি, বাটালি হিল, পাথরঘাটা গির্জা, বৌদ্ধ মন্দির, পিকে সেন ভবন, চন্দনপুরা মসজিদ, অলি আউলিয়ার দরগাহ, মাস্টারদা সূর্যসেনের স্মৃতি বিজড়িত অস্ত্রাগার দখলের স্থান, প্রীতিলতা ওয়াদ্দাদারের স্মৃতিধন্য পাহাড়তলী ইউরোপিয়ান ক্লাবসহ বিভিন্ন ঐতিহাসিক নিদর্শন।

 

এছাড়া প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন কেন্দ্র হালদার সৌন্দর্য দেখে মোহিত হন পর্যটকরা। সীতাকুণ্ডের চন্দ্রনাথ পাহাড়, ইকোপার্ক, গুলিয়াখালী সী-বিচ, মিরসরাইয়ের মহামায়া লেক, রাঙ্গুনিয়া শেখ রাসেল অ্যাভিয়ারি পার্ক, ভাটিয়ারীর নৈসর্গিক সৌন্দর্য্য মন ছুঁয়ে যায় ভ্রমণপিপাসুদের।

 

পর্যটন মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ২০১৫ সালে বাংলাদেশের পর্যটনখাতে প্রত্যক্ষ কর্মসংস্থান হয়েছে ১১ লাখ ৩৮ হাজার ৫০০ জনের। পরোক্ষ কর্মসংস্থান হয়েছিল ২৩ লাখ ৪৬ হাজার, যা মোট কর্মসংস্থানের ৪ দশমিক ১ শতাংশ। ওয়ার্ল্ড ট্রাভেল অ্যান্ড টুরিজম কাউন্সিল এর পূর্বাভাস হচ্ছে, গড়ে ১ দশমিক ৯ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়ে এই সংখ্যা ২০২৬ সালে ২৮ লাখে পৌঁছাবে।

 

বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড সূত্র জানায়, ট্যুরিজম সংশ্লিষ্ট এবং অ্যাভিয়েশন খাতে ২০১৪ সালে যাত্রী ছিলো ৯০ লাখ। ২০৩৫ সালে এই সংখ্যা পৌঁছবে ২২ কোটি ১০ লাখ। ২০১৪ সালে এই খাতে কর্মসংস্থান হয়েছিল ১৩ লাখ। ২০৩৫ সালে ১৪৫ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়ে এ সংখ্যা দাঁড়াবে ৩৩ লাখ। ২০১৪ সালে এই খাত থেকে দেশের মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) যুক্ত হয়েছিলো ৩ বিলিয়ন ইউএস ডলার। ২০৩৫ সালে ১৪২ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়াবে ৮ বিলিয়ন ইউএস ডলার।

 

বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান খান কবির পর্যটন শিল্পের বিকাশে সরকারের গৃহীত উদ্যোগের কথা নিশ্চিত করেন।

 

পর্যটনখাতে সরকারের গৃ্হীত উদ্যোগসমূহ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হলে, বাংলাদেশের রাজস্ব আয়ে এ খাত বিশাল অবদান রাখবে বলে আশা করা যায়।