অরিত্রীর বাবা-মায়ের কাছে ক্ষমা চেয়েছে গভর্নিং বডিঃ আন্দোলন স্থগিত

0 213

টানা তিন দিন অবস্থানের পর রাস্তা ছেড়ে গেছেন ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। গত মঙ্গলবার থেকে গভর্নিং বডির পদত্যাগ এবং অরিত্রীর মা-বাবার সঙ্গে দুর্ব্যবহারের জন্য বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার দাবিতে স্কুলটির প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থীর।

 

পরে বৃহস্পতিবার স্কুলের গভর্নিং বডির সভাপতি গোলাম আশরাফ তালুকদার সেখানে উপস্থিত হয়ে অরিত্রীর বাবা-মায়ের কাছে ক্ষমা চেয়ে অন্য দাবিগুলোও মেনে নেয়ার আশ্বাস দিলে শিক্ষার্থীরা রাস্তা ছেড়ে দিয়ে স্কুলের ভেতরে ফিরে যান।

 

 

শিক্ষার্থীদের মুখপাত্র আনুশকা রায় সাংবাদিকদের বলেন, “শিক্ষকরা আমাদের সব দাবি পর্যায়ক্রমে মেনে নেয়া হবে বলে আশ্বস্ত করেছেন। আমরা এখন ক্লাসে ফিরে যাব। আর যেগুলো আইনি বিষয়, সেগুলো আইনের মাধ্যমে সমাধান হবে বলে আমাদের আশ্বস্ত করা হয়েছে। শুক্রবার থেকে পরীক্ষা ও ক্লাসে ফিরে যেতে সব শিক্ষার্থীকে আহ্বান জানান আনুশকা।

 

 

স্কুলে ডেকে নিয়ে বাবা-মাকে অপমানের পর গত সোমবার আত্মহত্যা করেন নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারী। এর প্রতিবাদে মঙ্গলবার স্কুলের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা, যা তিন দিন ধরে চলছিল। অরিত্রীর মৃত্যুর পর শিক্ষা মন্ত্রণালয় দ্রুত তৎপর হয়ে উঠলে তদন্ত কমিটি গঠন, স্কুলের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্ত ও এমপিও বাতিল করা হয়েছে। টানা তিন দিনের আন্দোলনের মধ্যে বৃহস্পতিবার সকালে গভর্নিং বডির পদত্যাগ এবং অরিত্রীর মা-বাবার সঙ্গে দুর্ব্যবহারের জন্য বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার শর্ত দেয় আন্দোলনকারীরা।

 

এর মধ্যে দুপুর দেড়টার দিকে স্কুলের গভর্নিং বডির সভাপতি গোলাম আশরাফ তালুকদার সাংবাদিকদের মাধ্যমে অরিত্রীর বাবা-মায়ের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। প্রতিষ্ঠানের বৃহত্তর স্বার্থে প্রয়োজন হলে পদত্যাগ করতেও রাজি আছেন বলে জানান তিনি। এ সময় শিক্ষকদের কয়েকজনকেও ছাত্রীদের সঙ্গে কাঁদতে দেখা যায়। এক পর্যায়ে প্রধান ফটকের সামনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ভেতরে নিয়ে যেতে সক্ষম হন তারা। শিক্ষকদের সঙ্গে আলোচনা শেষে করে এসে আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দেন শিক্ষার্থীরা।

 

এদিকে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা আসার পর শিক্ষক হাসনা হেনাকে ‘নির্দোষ’ দাবি করে তার মুক্তি চেয়ে বিক্ষোভ করেন আরেক দল শিক্ষার্থী।

 

সূত্রঃ মানবকণ্ঠ