২০শে সেপ্টেম্বর ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেসের রাজভবন অভিযান

0 4

প্রতিনিধি (অাগরতলা) ভারতঃ  আজ এক সাংবাদিক সন্মেলনে কংগ্রেসের ভবনে কংগ্রেসের মুখপাত্র হরেকৃষ্ণ ভৌমিক রাফায়েল-স্ক্যাম নিয়ে মোদী সরকারের সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, রাফায়েল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর অধীনে ভারতের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ স্ক্যাম ।
“যখন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী জানতে চাইলেন, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী নির্মলা সীতারামানর কাছে বিমানের দাম সম্পর্কে, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী বলেন, নিরাপত্তা বিষয়ক বিষয়ে বিমানের খরচগুলি বলা যাবে না। তিনি বলেন, ২০০৮ এর চুক্তিতে এটি লেখা হয়েছিল যে লোকসভায় কোনো নির্দিষ্ট তথ্য দেওয়া যাবে না, যখন ২০০৮ সালে কংগ্রেস সরকার নিজেই ক্ষমতায় ছিল, মোদী সরকারের দুর্নিতি ধামাচাপা দিতে বিজেপি সরকারের এই কৌশল বলে দাবী করেন শ্রী ভৌমিক,

তিনি বলেন, ২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের আগে নরেন্দ্র মোদি নির্বাচনী প্রচারে ঘোষণা দিয়েছিলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি নেবে তাঁর সরকার। কিন্তু, দুর্ভাগ্যের বিষয় হলো প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধেই দেশের সর্ববৃহত্‍ দুর্নীতি নিয়ে সোচ্চার হতে হচ্ছে। তাঁর দাবি, রাফায়েল যুদ্ধ বিমান ক্রয়ে ভারতের ৪১ হাজার ২০৫ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। কারণ, ইউপিএ আমলে প্রতি যুদ্ধ বিমান ৫২৬ কোটি ১০ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ক্রয়ের সিদ্ধান্ত হয়েছিল। ইউপিএ সরকার ফ্রান্স থেকে ১২৬টি যুদ্ধ বিমান ক্রয় করবে বলে স্থির করেছিল।

কিন্তু, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মাত্র ৩৬টি রাফায়েল যুদ্ধ বিমান ৬০ হাজার ১৪৫ কোটি টাকার বিনিময়ে ক্রয়ে ফ্রান্স সরকারের সাথে চুক্তি করেছেন। সুস্মিতা দেব জানতে চেয়েছেন, কেন দেশের অর্থের ৪১ হাজার ২০৫ কোটি টাকা অতিরিক্ত খরচ করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি?”রাফায়েল-স্ক্যামটি সংসদে রাহুল গান্ধী দ্বারা প্রকাশিত হয়েছিল এবং ফরাসি সরকারের সাথে রাফায়েল-চুক্তি সংক্রান্ত কিছু প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, কিন্তু আজ পর্যন্ত প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এর জবাব এখন ও দেয়নি,  এবং মোদি এখন ও আম্বানিকে বাঁচানোর জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন, এখন মোদী সরকার রাফায়েল-চুক্তি সম্পর্কিত প্রশ্নগুলি স্পষ্ট করে জনগনের কাছে তুলে ধরতে পারচ্ছে না ” বলে অভিযোগ করেন শ্রী ভৌমিক তিনি আর ও বলেন এই রাফায়েল-স্ক্যাম কে সামনে রেখে ২০ শে সেপ্টেম্বর ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেস রাজভবন অভিযানে যাবে।

প্রসেনজিৎ দাস।